বৃহস্পতিবার , ২৮ অক্টোবর ২০২১
  • প্রচ্ছদ » জাতীয় » নিজস্ব ইন্দো-প্যাসিফিক কৌশল প্রণয়ন করবে বাংলাদেশ: পররাষ্ট্র সচিব


নিজস্ব ইন্দো-প্যাসিফিক কৌশল প্রণয়ন করবে বাংলাদেশ: পররাষ্ট্র সচিব




ফটো নিউজ ২৪ : 10/09/2021


-->

২০১৭ সালে ইন্দো-প্যাসিফিক স্ট্র্যাটেজি (আইপিএস) ঘোষণা করে যুক্তরাষ্ট্র। পরের বছর ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও সিঙ্গাপুরে সাংগ্রিলা ডায়ালগে ইন্দো-প্যাসিফিক কৌশলের কথা জানান। এই অঞ্চলের অন্য দেশগুলোর পাশাপাশি ইউরোপীয় ইউনিয়ন সামগ্রিকভাবে এবং জার্মানি, ফ্রান্স, যুক্তরাজ্যসহ অন্যরা জাতীয় স্বার্থ বিবেচনা করে নিজস্ব আইপিএস প্রণয়ন করছে।

বাংলাদেশও পিছিয়ে নেই ইন্দো-প্যাসিফিক ইস্যুতে। অন্য সবার নীতি পর্যবেক্ষণ করে নিজস্ব পলিসি প্রণয়ন করবে সরকার।

এ বিষয়ে পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন বলেন, ‘ইন্দো প্যাসিফিক-এর আলোচনা এড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ নেই। কারণ আমরা বঙ্গোপসাগরের একটি অংশ। সুতরাং যে ধাঁচেই হোক, আমাদেরকে সম্পৃক্ত হতে হবে।’

‘এই অঞ্চলে বড় কিছু হলে সেখানে আমাদের অংশীদারিত্ব থাকবে। আমাদের বিবেচনায় অর্থনীতি সবার আগে। সবার উপকারের জন্য যত দ্রুত সম্ভব আমাদের অবস্থান পরিষ্কার করা উচিৎ।’ এমনটাই মনে করেন পররাষ্ট্র সচিব।

আইপিএস প্রনয়ন

আগস্টের শেষদিকে জার্মানির সঙ্গে প্রথম স্ট্র্যাটেজিক ডায়ালগে ইন্দো-প্যাসিফিক স্ট্র্যাটেজি নিয়ে আলোচনা করেছেন পররাষ্ট্র সচিব।

সচিব বলেন, ‘জার্মানির সঙ্গে কথা বলে যা বুঝলাম, জার্মানি বা ইইউর ইন্দো-প্যাসিফিক পলিসি মাত্র বিকশিত হচ্ছে। এখনও সম্পূর্ণ হয়নি। আমরা দেখছি কে কীভাবে বিষয়টি দেখছে। সেটার আলোকে আমাদের নীতি প্রণয়ন করতে হবে।’

কোয়াড ও আইপিএস

কোয়াড ও আইপিএস ভিন্ন এবং দুটোকে একসঙ্গে দেখার সুযোগ নেই বলেও জানান পররাষ্ট্র সচিব।

তিনি বলেন, ‘কোয়াড বিষয়ে চীন সরাসরি বলছে এটি তাদের দেশের বিরুদ্ধে একটি জোট। সুতরাং কোয়াডের ক্ষেত্রে নিরাপত্তার বিষয় জড়িত, ইন্দো-প্যাসিফিকে তা নেই।’ ইন্দো-প্যাসিফিক অনেক ব্যাপক বলেও জানান তিনি।

যে জায়গায় একমত

মাসুদ বিন মোমেন বলেন, ‘দুই পক্ষের জন্য প্রযোজ্য বিষয়গুলোর মধ্যে রয়েছে- সবার সমুদ্রপথে চলাচলের অধিকার, শান্তি, জলদস্যুমুক্ত সমুদ্র ও এ অঞ্চলের সম্পদ সংগ্রহের সুযোগ (মৎস্য ও সামুদ্রিক সম্পদ)।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের সাবধানে থাকতে হবে যেন, এটি কোনও নিরাপত্তা জোটে পরিণত না হয়ে যায়।’

ভিন্নমত

যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের সঙ্গে ইউরোপের দেশগুলো কীভাবে আচরণ করবে সেটাও বিবেচনায় নিচ্ছে বাংলাদেশ। পররাষ্ট্র সচিব বলেন, ‘ইউরোপীয়রা মার্কিনিদের মতো আচরণ করে না। আবার চীন ও জাপানের মধ্যে বিরোধ অনেকদিনের।’

তিনি বলেন, ‘ইউরোপের দেশগুলো গত ২০ বছরে চীনের সঙ্গে বেশি ঘনিষ্ঠ হয়েছে। এরা চাইলেই এখন মার্কিন নীতি অনুসরণ করতে পারবে না। সুতরাং তাদের বাদ না দিয়ে বরং অন্তর্ভুক্তিমূলক ও নমনীয় নীতি গ্রহণ করতে হবে।’

এ কারণে যুক্তরাষ্ট্র, ভারত বা জাপানের আগ্রহের জায়গাটি ইউরোপীয়দের চেয়ে কিছুটা ভিন্ন হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘ইউরোপীয়দের মধ্যেও যে ইন্দো-প্যাসিফিক নীতি বিকশিত হচ্ছে সেটা আমাদের জন্য আগ্রহের একটি জায়গা।’


-->


সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক: আবু সুফিয়ান
চেয়ারম্যান: মুসলিমা সুফিয়ান

কল: 01723-980255,01919-972103
নিউজ রুম :01710-972103
ইমেল: Photonews24@yahoo.com

১২মধ্য বেগুনবাড়ি,তেজগাঁও শিল্প এলাকা,ঢাকা -১২০৮
ইমেল: shufian707@gmail.com