বৃহস্পতিবার , ২১ অক্টোবর ২০২১


পাট নিয়ে উদ্যোগী সরকার




ফটো নিউজ ২৪ : 05/09/2021


-->

সবসময়ই সম্ভাবনা দেখিয়েছে পাট। মাঝে ভাটা পড়লেও সোনালি আঁশের সুদিন ফিরে পেতে চায় সরকার। এজন্য পাটের উৎপাদন বাড়ানোর পাশাপাশি পাটজাত পণ্য রফতানি করে আয় করতে চায় বৈদেশিক মুদ্রা। বন্ধ পাটকলগুলো লাভজনকভাবে চালু করে কর্মসংস্থান সৃষ্টির কথাও ভাবছে সরকার। পাট মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে এ তথ্য।

সূত্র জানায়, পাটের উৎপাদন বাড়াতে মানসম্মত পাটবীজের ওপরও গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার। বীজে স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে চায় বাংলাদেশ। এজন্য নেওয়া হয়েছে পাঁচ বছরের পরিকল্পনা। সব ঠিক থাকলে ২০২৫ সালের মধ্যে বাংলাদেশ উন্নত পাটবীজ উৎপাদনে স্বনির্ভর হবে।

বাংলাদেশ জুট রিসার্চ ইনস্টিটিউট সূত্র জানিয়েছে, এই রোডম্যাপ বাস্তবায়ন শুরু হয়েছে এ বছর থেকেই। ইতোমধ্যে কৃষি মন্ত্রণালয়ের বীজ অণুবিভাগ রোডম্যাপ চূড়ান্ত করেছে। জানা গেছে, তৎকালীন ইন্টারন্যাশনাল জুট অর্গানাইজেশনের আর্থিক সহযোগিতায় ১৯৮২ সালে বিজেআরআইতে একটি জিন ব্যাংক প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। যেখানে বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে সংগৃহীত পাট ও সমগোত্রীয় আঁশ ফসলের প্রায় ছয় হাজার জার্মপ্লাজম সংরক্ষিত আছে। বীজ উৎপাদন ও নতুন জাতের উদ্ভাবনে এটিও কাজে আসবে।

সূত্র জানিয়েছে, বিজেআরআই তিনটি ধারায় গবেষণা চালাচ্ছে- ১। পাটের উচ্চফলনশীল জাত উদ্ভাবন ও উৎপাদন ব্যবস্থাপনা এবং বীজ উৎপাদন ও সংরক্ষণ ২। মূল্য সংযোজিত বহুমুখী নতুন জাতের পাট-পণ্য উদ্ভাবন এবং প্রচলিত পাট-পণ্যের মানোন্নয়ন, এবং ৩। পাটের টেক্সটাইল তথা পাট, তুলা ও অন্যান্য প্রাকৃতিক ও কৃত্রিম আঁশের সংমিশ্রণে পাটজাত টেক্সটাইল পণ্য উৎপাদন সংক্রান্ত গবেষণা।

বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, বন্ধ পাটকলগুলো চালু করার কথা জোরেশোরেই ভাবছে সরকার। পাশাপাশি বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিলস করপোরেশনের (বিটিএমসি) মিলগুলো সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্বের (পিপিপি) আওতায় দ্রুত চালু করার চিন্তাও আছে।

খুলনার পাটকল
খুলনার পাটকল
এজন্য বস্ত্র ও পাটখাতে দক্ষ কর্মী ও ব্যবস্থাপক সৃষ্টির জন্য উপযুক্ত প্রশিক্ষণ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপন, বস্ত্র, পাট, তাঁত ও রেশম খাতে গবেষণার জন্য প্রতিষ্ঠান, বস্ত্র ও পাট সংক্রান্ত জাদুঘর স্থাপন, পাটজাত পণ্যের অভ্যন্তরীণ ব্যবহার বাড়াতে ব্যবস্থা গ্রহণ, খাত সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান ও স্টেক হোল্ডারদের সঙ্গে সমন্বয় সাধন, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সকল দফতরের সেবা অনলাইনে আনা এবং চাহিদাভিত্তিক কারিকুলাম প্রণয়নের সুপারিশ করার কথাও বলা হয়েছে।

পাট সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, দেশে পাট উৎপাদন স্থিতিশীল রাখতে চায় সরকার। এজন্য উপকূলবর্তী লবণাক্ত অঞ্চলে পাট চাষ সম্প্রসারণ করার চিন্তা আছে। যার জন্য লবণ-সহিষ্ণু জাত উদ্ভাবনের কার্যক্রমও নেওয়া হয়েছে। পণ্যভিত্তিক ও কাগজের মণ্ড তৈরির জন্য সারা বছর চাষ উপযোগী পাট ও এ জাতীয় ফসলের নতুন জাত উদ্ভাবনের উদ্যোগও নেওয়া হয়েছে। বিভিন্ন বায়োটিক (জীবাণু ও পোকামাকড়) এবং এবায়োটিক (কৃত্রিম উপাদান) ও প্রতিকূলতা সহনশীল উচ্চফলনশীল জাত উদ্ভাবন করারও চিন্তাভাবনা চলছে। অনুর্বর জমি ব্যবহারের জন্য কাঁটাবিহীন মসৃণ কাণ্ড বিশিষ্ট কেনাফ ও মেস্তার জাত উদ্ভাবনের চেষ্টা চলছে। জৈবপ্রযুক্তির (বায়োটেকনোলজি) মাধ্যমে রোগ-জীবাণু ও পোকামাকড় সহনশীল জাত উদ্ভাবনের পরিকল্পনাও নেওয়া হয়েছে। পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে, উৎপাদন খরচ কমিয়ে স্থান-উপযোগী পাট পচন প্রযুক্তি উদ্ভাবনেরও।

জাতীয় বীজ কর্মসূচির সহায়তার জন্য সরকারি ও বেসরকারি বীজ উৎপাদন ও বিপণন প্রতিষ্ঠানকে চাহিদা অনুযায়ী প্রজনন বীজ সরবরাহ করার কাজ চলছে।

এ প্রসঙ্গে কৃষিবিদ ড. মো. মাহবুবুল ইসলাম জানিয়েছেন, ফরিদপুর, যশোর ছাড়াও বৃহত্তর রাজশাহী অঞ্চলে ব্যাপক পাটের আবাদ হয়। কিন্তু রাজশাহী অঞ্চলের পাট ও এ জাতীয় আঁশ ফসলের দেখাশোনার কেন্দ্র নেই।

পাট নিয়ে আরও যত পরিকল্পনা

পরিকল্পনার তালিকায় রয়েছে-

ক। বিজেআরআই’র নতুন গবেষণা কেন্দ্র স্থাপন করা।

খ। পাটের আরও সূক্ষ্ম তন্তু (লো-কাউন্ট) উৎপাদন।

গ। প্রচলিত ও বহুমুখী পাটজাত পণ্যের মান উন্নয়ন করে উৎপাদন খরচ কমানো।

ঘ। পাট ও এর সঙ্গে অন্যান্য আঁশের (তুলা, পলিয়েস্টার ইত্যাদি) মিশ্রণে টেক্সটাইল পণ্য উৎপাদন এবং পাট ও উলের সংমিশ্রণে সুতা উৎপাদন।

ঙ। পাটের বায়োকম্পোজিট প্লাস্টিক উৎপাদন।

চ। পাটের আঁশে ধুলা যাতে মিশতে না পারে সে জন্য আঁশ শুকানো ও পচানোর প্রযুক্তি উদ্ভাবন।

ছ। ছোট পরিসরে কেমিক্যাল প্রসেসিং প্লান্ট স্থাপন। ওয়েট প্রসেসিং ও মিনি স্পিনিং প্লান্ট স্থাপন করে যুগোপযোগী পণ্য প্রস্তুত করা।

জ। বিজেআরআই উদ্ভাবিত বহুমুখী পাটপণ্য উৎপাদন প্রযুক্তির বাণিজ্যিক সম্প্রসারণের জন্য উদ্যোগ নেওয়া এবং-

ঝ। পরিশেষে, পাট সংশ্লিষ্ট সকল বিভাগ, প্রতিষ্ঠান ও মন্ত্রণালয়গুলোর মধ্যে যোগাযোগ বাড়ানো।

এ প্রসঙ্গে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী জানিয়েছেন, আশা করছি, পাট নিয়ে সরকারের চলমান ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গির সুফল দেশের মানুষ অচিরেই পাবেন।


-->


সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক: আবু সুফিয়ান
চেয়ারম্যান: মুসলিমা সুফিয়ান

কল: 01723-980255,01919-972103
নিউজ রুম :01710-972103
ইমেল: Photonews24@yahoo.com

১২মধ্য বেগুনবাড়ি,তেজগাঁও শিল্প এলাকা,ঢাকা -১২০৮
ইমেল: shufian707@gmail.com