বৃহস্পতিবার , ২৯ অক্টোবর ২০২০
  • প্রচ্ছদ » অপরাধ » ফাঁড়িতে ‘পুলিশি নির্যাতনে’ যুবকের মৃত্যু
    খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়াকে!


ফাঁড়িতে ‘পুলিশি নির্যাতনে’ যুবকের মৃত্যু
খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়াকে!




ফটো নিউজ ২৪ : 13/10/2020


-->

ফাঁড়িতে ‘পুলিশি নির্যাতনে’ যুবকের মৃত্যুর ঘটনায় অভিযুক্ত এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়াকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। তার মোবাইলও বন্ধ। বিষয়টি নিশ্চিত করেছে সংশ্লিষ্ট পুলিশ সূত্র।

এর আগে সোমবার ওই যুবকের মৃত্যুর ঘটনায় সিলেট মহানগর পুলিশের বন্দর বাজার ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন ভুঁইয়াসহ চার পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। প্রত্যাহার করা হয়েছে আরও তিন পুলিশ সদস্যকে।

সাময়িক বরখাস্তকৃত অন্য পুলিশ সদস্যরা হলেন- বন্দর বাজার ফাঁড়ির কনস্টেবল হারুনুর রশিদ, তৌহিদ মিয়া ও টিটু চন্দ্র দাস।

প্রত্যাহার হওয়া পুলিশ সদস্যরা হলেন- এএসআই আশেক এলাহী, এএসআই কুতুব আলী ও কনস্টেবল সজিব হোসেন।

এদিকে রায়হান আহমদের মৃত্যুর ঘটনায় দায়েরকৃত মামলাটি পিবিআইতে স্থানান্তর করা হয়েছে।

সিলেট মহানগর পুলিশের উপপুলিশ কমিশনার (মিডিয়া) জ্যোতির্ময় সরকার বলেন, পরিবারের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে রায়হানের স্ত্রীর দায়ের করা মামলাটি পিবিআইতে স্থানান্তর করা হয়।

রবিবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে সিলেট মহানগর পুলিশের কোতোয়ালি থানায় এ মামলা দায়ের করেন নিহত রায়হানের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার তান্নি (২২)।

মামলায় উল্লেখ করেন, শনিবার বিকাল ৩টার দিকে তার স্বামী রায়হান আহমদ নিজ কর্মস্থলে বেরিয়ে যান। পরদিন ভোর ৪টা ৩৩ মিনিটে একটি মোবাইল নম্বর থেকে শাশুড়ি (রায়হানের মা সালমা বেগম)-এর মোবাইলে কল দিলে সেটি রিসিভ করেন রায়হানের চাচা হাবিবুল্লাহ।

এসময় রায়হান আর্তনাদ করে বলেন, তিনি বন্দর বাজার পুলিশ ফাঁড়িতে আছেন। তাঁকে বাঁচাতে দ্রুত টাকা নিয়ে ফাঁড়িতে যেতে বলেন। এ কথা শুনে রায়হানের চাচা ভোর সাড়ে ৫টার দিকে বন্দর বাজার পুলিশ ফাঁড়িতে গিয়ে রায়হান কোথায় জানতে চাইলে দায়িত্বরত একজন পুলিশ বলেন, সে ঘুমে। যে পুলিশ রায়হানকে ধরে এনেছিলেন, তিনিও চলে গেছেন। ঐ পুলিশ হাবিবুল্লাহকে ১০ হাজার টাকা নিয়ে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে ফাঁড়িতে আসার কথা বলেন।

হাবিবুল্লাহ আবারও সকাল পৌনে ১০টার দিকে ফাঁড়িতে গেলে দায়িত্বরত পুলিশ জানান, রায়হান অসুস্থ। তাকে এম.এ.জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তখন রায়হানের চাচা ওসমানী হাসপাতালে গিয়ে জরুরি বিভাগে খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন, রায়হান মারা গেছেন।

তাহমিনা আক্তার তান্নি মামলায় আরও বলেন, আমার স্বামীকে কে বা কারা বন্দর বাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নিয়ে গিয়ে পুলিশি হেফাজতে রেখে হাত-পায়ে আঘাত করে এবং হাতের নখ উপড়ে ফেলেছে। পুলিশ ফাঁড়িতে রাতভর নির্যাতনের ফলে আমার স্বামী মৃত্যুবরণ করেন। এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের সর্বোচ্চ শাস্তি প্রদানের দাবি জানান রায়হানের স্ত্রী তানিয়া আক্তার তান্নি।


-->


সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক: আবু সুফিয়ান
চেয়ারম্যান: মুসলিমা সুফিয়ান

কল: 01723-980255,01919-972103
নিউজ রুম :01710-972103
ইমেল: Photonews24@yahoo.com

১২মধ্য বেগুনবাড়ি,তেজগাঁও শিল্প এলাকা,ঢাকা -১২০৮
ইমেল: shufian707@gmail.com