সোমবার , ২৮ অক্টোবর ২০১৯
  • প্রচ্ছদ » জাতীয় » পাল্টে যাচ্ছে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের ভেতরে একুশে বইমেলার অবস্থান


পাল্টে যাচ্ছে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের ভেতরে একুশে বইমেলার অবস্থান




ফটো নিউজ ২৪ : 28/10/2019


-->

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উদযাপনের জন্য আগামী বছর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের ভেতরে একুশে বইমেলার অবস্থান পাল্টে যাচ্ছে। তবে বাংলা একাডেমির ভেতরের অবস্থান আগের মতোই থাকছে।

এবার শাহবাগ থেকে দোয়েল চত্বরমুখী সড়ক ঘেঁষে ছবির হাট থেকে শুরু করে তিন নেতার মাজার পর্যন্ত এলাকা এবারের মেলার জন্য বাছাই করা হয়েছে বলে মেলা পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব ড. জালাল আহমেদ জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, সাধারণত রমনার কালী মন্দির, মুক্তমঞ্চ ও স্বাধীনতা স্তম্ভের জলাধারের মাঝখানের জায়গাটিতেই উদ্যানের মেলা বসতো। এবার সেই জায়গায় বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ উদযাপনের প্রস্তুতি চলবে।

“তাই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, ছবির হাট থেকে শুরু করে তিন নেতার মাজার পর্যন্ত রাস্তার ধার দিয়ে এবারের মেলার আয়োজন করব। তবে বাংলা একাডেমির পরিসর আগের মতোই থাকছে, শুধু উদ্যানের জায়গাটা পরিবর্তন হচ্ছে।”

এবিষয়ে জানতে চাইলে বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক হাবিবুল্লাহ সিরাজী বলেন, বইমেলার উদ্যানের অংশের প্রাঙ্গণ পরিবর্তনের বিষয়ে ৪ নভেম্বর বিস্তারিত জানানো হবে।

আসছে বইমেলা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে উৎসর্গ করায় ‘মেলার সজ্জায় তার ছোঁয়া থাকবে’ বলে জানান আয়োজক প্রতিষ্ঠান বাংলা একাডেমির পরিচালক জালাল।

“এবারও গ্রন্থমেলার নকশা ও সাজসজ্জার দায়িত্বে আছেন স্থপতি এনামুল করিম নির্ঝর। প্রাথমিক নকশা করা হয়েছে। শিগগিরই চূড়ান্ত নকশা পাওয়া যাবে। তার উপর ভিত্তি করে কাজ শুরু হবে।”

তিনি জানান, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের মেলা প্রাঙ্গণে প্রবেশের জন্য এবার ছবিরহাট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির চত্বরসংলগ্ন উদ্যানের প্রবেশ পথ ও বাংলা একাডেমির বিপরীত দিকে তিনটি বড় প্রবেশ পথ থাকবে। সব মিলে ১৩টি প্রবেশ পথ দিয়ে মেলায় ঢোকা যাবে।

“এবারের উদ্যানের পরিসরটা এমনিতে দেখতে অনেক বেড়ে যাচ্ছে। কিন্তু যেহেতু জায়গাটিতে অনেক গাছ-পালা আছে, আবার বঙ্গবন্ধুকে উৎসর্গকৃত এই মেলার সাজ-সজ্জাতেও বিষটির প্রাধান্য থাকবে তাই উদ্যানের পরিসর বাড়বে কি বাড়বে না- সেটা নির্ভর করছে আমরা ফাইনাল যে ডিজাইনটা পাব তার উপর।”

এবার বাংলা একাডেমির বইমেলা যখন হবে, তখন পুরোদমে চলবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় মেট্রোরেলের নির্মাণকাজ। যে সড়কের পাশে মেলা বসছে, তাতে ব্যারিকেড দিয়ে মেট্রোরেলের নির্মাণকাজের সরঞ্জাম রাখা হচ্ছে।

এর ফলে মেলা আয়োজনে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হবে কিনা জানতে চাইলে জালাল বলেন, ডিসেম্বরের শুরু থেকেই টিএসসি থেকে দোয়েল চত্বর পর্যন্ত সড়কে কোনো ধরণের সরঞ্জাম না রাখার বিষয়ে মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষ আগেই প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল।

“কিন্তু এখন যেহেতু জায়গাটা আরো বেড়ে যাচ্ছে, তাই শাহবাগ থেকে দোয়েল চত্বর পর্যন্ত জায়গাটাতে যাতে ওই সময় পিলার ছাড়া অন্য কোনো জিনিস যেমন ব্যারিয়ার, ব্যারিকেড আছে সেগুলো সরানো হয়, এই বিষয়ে আমরা আবার কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করব। আশা করি, মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষ আমাদের সহযোগিতা করবে।”

২০২০ সালের একুশে গ্রন্থমেলার জন্য এর মধ্যেই স্টল বরাদ্দের জন্য আবেদন জমা নেওয়া হচ্ছে এবং মেলা ও অনুষ্ঠানমালার স্পন্সরশিপসংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তিও গণমাধ্যমে প্রকাশ করা হয়েছে।

বাংলা একাডেমি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ২৭ ডিসেম্বরের মধ্যে মেলার সীমানা চূড়ান্ত করা হবে। ১ জানুয়ারি মেলার স্টল বরাদ্দের লটারি অনুষ্ঠিত হবে।

পরের দিন স্টল বরাদ্দের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করার পর শুরু হবে সাজসজ্জার কাজ, যা চলবে ২৪ জানুয়ারি পর্যন্ত।

২৫ জানুয়ারির মধ্যে স্টল সজ্জার কাজ শেষ করতে হবে। ১ থেকে ২৯ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে অমর একুশে গ্রন্থমেলা।


-->


সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক: আবু সুফিয়ান
চেয়ারম্যান: মুসলিমা সুফিয়ান

কল: 01723-980255,01919-972103
নিউজ রুম :01710-972103
ইমেল: Photonews24@yahoo.com

১২মধ্য বেগুনবাড়ি,তেজগাঁও শিল্প এলাকা,ঢাকা -১২০৮
ইমেল: shufian707@gmail.com