বুধবার , ২৮ অগাস্ট ২০১৯


‘বিপিএল’ মানে বিসিবির পকেট ভারি হওয়া!




ফটো নিউজ ২৪ : 07/08/2019


-->

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) মানে বিসিবির পকেট ভারি হওয়া!

এই টি ২০ টুর্নামেন্টকে ঘিরে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের একমাত্র লক্ষ্য লাভ যেন বেশি হয়। এজন্য যত কম খরচ করা যায় সেই চেষ্টা করে বিপিএল পরিচালনা কমিটি। বেশি ভেন্যুতে খেলা মানে বাড়তি খরচ। তার ওপর কয়েকটি ফ্র্যাঞ্চাইজিকে লাভবান করার জন্য নিয়ম পরিবর্তন করা হয় যখন-তখন। ২০১২ সালে বিপিএলের প্রথম আসর থেকে এই ধারা চলে আসছে। সপ্তম আসর বসার চার মাস আগে তারই আভাস।

বিপিএল অনুষ্ঠিত হয় দুটি ভেন্যুতে। সর্বশেষ দুই আসর বসেছে তিনটি ভেন্যুতে। আবার দুটি ভেন্যুতে হওয়ার কথা শোনা যাচ্ছে। মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম এবং চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের সঙ্গে তৃতীয় ভেন্যু ছিল সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম। এবার সিলেট সিক্সার্সের মালিকানা পরিবর্তনের সম্ভাবনা রয়েছে। তাই সিলেটকে ভেন্যু না রাখার সম্ভাবনাই বেশি। বিপিএলের অধিকাংশ ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয় মিরপুরে। গ্যালারির বড় অংশ ফাঁকা থাকে। খুলনা ও বগুড়ায় দর্শক বেশি হয়। কিন্তু ভেন্যু বাড়িয়ে সেসব জায়গায় খেলা দেয়ার পরিকল্পনা নেই বিপিএল পরিচালনা কমিটির। নতুন ভেন্যু মানে বেশি খরচ। ভেন্যু না বাড়ালে টাকা বিসিবির পকেটে থাকবে!

খুলনাকে ভেন্যু করা নিয়ে পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক বলেন, ‘খুলনায় দর্শক চাহিদা ব্যাপক। কিন্তু সেখানে ভালোমানের হোটেল নেই। সাতটি দলকে একসঙ্গে রাখার মতো ভালো হোটেলের অভাব। ক্রিস গেইল, এবি ডি ভিলিয়ার্সদের মতো খেলোয়াড়দের রাখতে হলে আরও ভালো হোটেল দরকার। এছাড়া বিমানবন্দর থেকেও শহরের দূরত্ব বেশি। তাই পরিকল্পনায় থাকলেও বাস্তবায়ন করা কঠিন।’

গত বিপিএলে ডিআরএস থাকলেও হটস্পট ছিল না। কয়েক কোটি টাকা বেশি খরচ হবে বলে প্রথমদিকে হটস্পট রাখা হয়নি। পরে সমালোচনার মুখে ডিআরএসের সব পদ্ধতি যোগ করা হয়। এসবই বিসিবির লাভের জন্য। অধিকাংশ ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিক বিসিবির পরিচালক। দু’একটা দলকে সুবিধা দেয়ার জন্য রাতারাতি নিয়ম পরিবর্তন করার উদাহরণ রয়েছে।


-->


সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক: আবু সুফিয়ান
চেয়ারম্যান: মুসলিমা সুফিয়ান

কল: 01723-980255,01919-972103
নিউজ রুম :01710-972103
ইমেল: Photonews24@yahoo.com

১২মধ্য বেগুনবাড়ি,তেজগাঁও শিল্প এলাকা,ঢাকা -১২০৮
ইমেল: shufian707@gmail.com