মঙ্গলবার , ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮
  • প্রচ্ছদ » খেলা » সেমিতে ক্রোয়েশিয়া টাইব্রেকারে রাশিয়াকে হারিয়ে


সেমিতে ক্রোয়েশিয়া টাইব্রেকারে রাশিয়াকে হারিয়ে




ফটো নিউজ ২৪ : 07/07/2018


-->

  স্পোর্টস ডেস্ক: ১২০ মিনিটের খেলা। পেন্ডুলামের মত একবার এদিকে, আরেকবার ওদিকে দুলছিল পুরো ম্যাচ। কেউ কাউরে ছাড়ার পাত্র নয়। প্রথমে গোল করেছিল রাশিয়া, এরপর ক্রোয়েশিয়া। খেলা গড়াল অতিরিক্ত সময়ে। সেখানে গোল করে এগিয়ে গেলো ক্রোয়েশিয়া। এরপর আবারও গোল করলো রাশিয়া। ১২০ মিনিট শেষে ২-২ সমতা। খেলা গড়ালো টাইব্রেকারে। টাইব্রেকারে ৪-৩ ব্যবধানে স্বাগতিক রাশিয়াকে হারিয়ে সেমিফাইনালে পৌঁছে গেলো ক্রোয়েশিয়া।

১৯৯৮ সালের পর এই প্রথম আবারও সেমিতে উঠলো ক্রোয়াটরা। টাইব্রেকারে ইভান রাকিটিচের শটের পরই জয়ের উল্লাসে মেতে ওঠে ক্রোয়েশিয়া।

টাইব্রেকারেও নাটকের পর নাটক। রাশিয়ার প্রথম শটটাই ঠেকিয়ে দিয়েছিলেন ক্রোয়েশিয়ার গোলরক্ষক সুবাসিচ। ঝাঁপিয়ে পড়লেও হাত দিয়ে ঠেকিয়ে দেন সমোলভের শট। ক্রোয়েশিয়ার ব্রজোভিকের শট জড়িয়ে যায় রাশিয়ার জালে। ১-০। পরের শট নেন জাগোয়েভ। এই শটটি জড়িয়ে যায় জালে। ১-১। ক্রোয়েশিয়ার হয়ে শট নিতে আসেন কোভাসিচ। কিন্তু তার শট ঠেকিয়ে দেন রাশিয়ার গোলরক্ষক আকিনফিভ। ১-১।

রাশিয়ার হয়ে পরের শট নিতে আসেন মারিও ফার্নান্দেজ। যার গোলে সমতায় ফিরেছিল রাশিয়া। কিন্তু, তিনি বলটি মেরে দেন বক্সের বাইরে। ১-১। ক্রোয়েশিয়ার হয়ে শট নিতে আসেন লুকা মদ্রিচ। তার শট ঠেকিয়েছিলেনও আকিনফিভ। কিন্তু বল হাতে লেগে চলে যায় ভেতরে। ২-১। রাশিয়ার হয়ে ইগনাসেভিক স্কোর করেন। ২-২।

ক্রোয়েশিয়ার হয়ে পরের শটে গোল করেন ভিদা। ২-৩। রাশিয়ার হয়ে পরের শট নেন কুজায়েভ। এটা ছিল রাশিয়ার শেষ শট। এবারও গোল। ৩-৩। ক্রোয়েশিয়ার হয়ে শেষ শট নিতে আসেন ইভান রাকিটিচ। তার শট জড়িয়ে গেলো জালে। ৪-৩। জয়ের আনন্দে মেতে ওঠে পুরো ক্রোয়েশিয়া শিবির। নিথর-নিস্তব্ধ হয়ে যায় পুরো গ্যালারি। কান্নায় ভিজে যায় রাশিয়ান সমর্থকদের চোখ।
প্রথমার্ধে দু’দল পরস্পর পরস্পরের জালে একবার করে বল জড়িয়েই শেষ। দ্বিতীয়ার্ধে আক্রমণ আর পাল্টা আক্রমণে ম্যাচ দারুণ জমে উঠলেও কেউ কারও জালে বল প্রবেশ করাতে পারেনি। যদিও একচেটিয়া ক্রোয়েশিয়া খেলেছে এবং একের পর এক গোলের সুযোগ তৈরি করেছে। কিন্তু রাশিয়ার জাল আর তাদের চেষ্টাগুলো খুঁজে পায়নি। এমনকি বল সাইডবারে লেগেও ফিরে এসেছিল; কিন্তু গোল হয়নি। শেষ পর্যন্ত খেলা গড়ালো অতিরিক্ত সময়ে।

দ্বিতীয় রাউন্ডের খেলায়ও রাশিয়া এবং ক্রোয়েশিয়া, দু’দলেরই ম্যাচই গড়িয়েছিল অতিরিক্ত সময়ে এবং শেষ পর্যন্ত টাইব্রেকারেই নিষ্পত্তি হয়েছিল ম্যাচের। কোয়ার্টার ফাইনালে এসে আবারও দু’দলের ম্যাচ গড়ালো অতিরিক্ত সময়ে এবং শেষ পর্যন্ত হয়তো টাইব্রেকারেও গড়াতে পারে খেরা।

সোচির ফিশ্ট স্টেডিয়ামে ম্যাচের প্রথমার্ধে যে কেউ কারো চেয়ে কম যায়নি! ১-১ সমতা নিয়েই দু’দল শেষে করে প্রথমার্ধ। প্রথমে দুর্দান্ত গোলে এগিয়ে যায় রাশিয়া। পরে রাশিয়ান ডিফেন্ডারদের ভুলে গোল শোধ করে দেয় ক্রোয়েশিয়া।

খেলার ৩১তম মিনিটেই গোল বের করে নেয় রাশিয়া। আবারও স্বাগতিকদের উল্লাসে ভাসালেন ডেনিশ চেরিশেভ। ভিয়ারিয়ালের এই স্ট্রাইকার কী অসাধারণ এক শট নিলেন। ক্রোয়েশিয়ার ডিফেন্সিভ হাফে বলের নিয়ন্ত্রণ নেন আর্তেম জিউবা। তিনি বল বাড়িয়ে দেন চেরিশেভকে। ডোমাগজ ভিদাকে কাটিয়ে বাম পায়ের দুর্দান্ত শট নেন চেরিশেভ।

ছোট বক্সের সামনে দাঁড়ানো গোলরক্ষক ড্যানিয়েল সুবাসিচ কোনো সুযোগই পেলেন না। নড়ারও সুযোগ ছিল না তার। বল সোজা গিয়ে প্রবেশ করলো ক্রোয়েশিয়ার জালে।

গোল হজম করে সেটা শোধ করতে মরিয়া হয়ে ওঠে ক্রোয়াটরা। একের পর এক আক্রমণের পসরা সাজিয়ে তোলে তারা। যদিও পাল্টা আক্রমণে উঠে আসার চেষ্টা করছিল রাশিয়া। এই সুযোগটাই গ্রহণ করে লুকা মদ্রিচরা। ৩৯ মিনিটেই দারুণ এক গোলে দলকে সমতায় ফেরান আন্দ্রে ক্রামারিচ।

বাম উইং থেকে বল নিয়ে এগিয়ে আসেন মারিও মানজুকিচ। একজন ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে দারুণ এক ক্রস করেন মানজুকিচ। এই ক্রসেই অসাধারণ এক হেড করেন ক্রামারিচ। তিনজন ডিফেন্ডার থাকলেও ক্রমানারিচের হেড ঠেকাতে পারেননি। গোলরক্ষক আকিনফিভকে ফাঁকি দিয়ে বল প্রবেশ করে রাশিয়ার জালে।

১০০তম মিনিটে গোল করে এগিয়ে যায় ক্রোয়েশিয়া। ডোমাগজ ভিদা অসাধারণ এক হেডে গোলটি করে ক্রোয়েশিয়াকে লিড এনে দেন। রাশিয়ান গোলরক্ষক আকিনফিভের হাত থেকে ফসকে আসা বলকে কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন কুতেপভ। সেই কর্নার কিকটি নেন লুকা মদ্রিচ। সেই বলটিকেই অসাধারণ এক হেডে রাশিয়ার জালে জড়িয়ে দেন ভিদা।

খেলা শেষ হওয়ার মাত্র ৫ মিনিট আগে গোল করে সমতায় চলে আসে রাশিয়া। বক্সের ডান কোনে হাত লাগিয়ে ফাউল করেন পিভারিক। রেফারি ফ্রি কিকের বাঁশি বাজান। শট নেন অ্যালান জাগোয়েভ। তার নিখুঁত শট থেকে ভেসে আসা বলে মাথা ছুঁইয়ে হেড করেন মারিও ফার্নান্দেস। সমতায় ফেরে রাশিয়া।

দ্বিতীয় মিনিটেই আক্রমণে ওঠে স্বাগতিক রাশিয়া। আর্তেম জিউবার থ্রো বল ধরে ক্রোয়েশিয়ার গোলমুখে এগিয়ে যান ডেনিশ চেরিশেভ। কিন্তু তাকে নিজেদের বক্সে আটকে দেন ভ্রাজালকো।

দুই মিনিট পরই আক্রমণে আবারও রাশিয়া। এবার আলেকজান্ডার গলোভিন দুর্দান্ত এক ক্রস দেন চেরিশেভকে। কিন্তু বক্সের মধ্যে চেরিশেভ বলের কাছে পৌঁছাতে পারেননি। যদিও ফিরতি বলটিতে বক্সের মধ্যেই দারুণ এক শট নিয়েছিলেন আর্তেম জিউবা। কিন্তু ডেজান লভরেন নিজের শরীর দিয়ে বল ঠেকিয়ে কর্নারের বিনিময়ে দলকে বাঁচান।

খেলার ৬ মিনিটে প্রথম সুযোগ বের করে নেয় ক্রোয়েশিয়া। রাশিয়ার গোল অভিমুখে বল নিয়ে এগিয়ে যান আনতে রেবিক। যদি কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন ইগনাশেভিক। লভরেন ডেজান কর্নার কিক করলে ভেসে আসা বলে দারুণ এক হেড নেন রেবিক। কিন্তু বল চলে যায় বক্সের ওপর দিয়ে।

১১ মিনিটেই গোলের সুযোগ পেয়েছিলেন মারিও মানজুকিচ। কিন্তু তার শট থমকে যায় বক্সের মধ্যে। ১৬ মিনিটে ইভার র‌্যাকিটিচের বল বক্সের ওপর দিয়ে বাইরে চলে যায়। ২৮ মিনিটে সিমো ভ্রাজালকোর ক্রস থেকে ভেসে আসা বলে হেড করেছিলেন ইভান পেরেসিচ। কিন্তু কোনো লাভ হয়নি এই হেডে। বল চলে যায় বাইরে।

৩১ মিনিটে তো ডেনিশ চেরিশেভের দারুণ শটে প্রথম গোল দিয়ে এগিয়ে যায় রাশিয়া। গোল হজম করার পর সেটা শোধ করতে মরিয়া হয়ে ওঠে ক্রোয়েশিয়া। ৩৩তম মিনিটেই আনতে রেবিক শট নিয়েছিলেন। কিন্তু বক্সের মধ্যেই সেই শট ব্লক হয়ে যায়। ৩৭ মিনিটে রাশিয়াকে এগিয়ে দেয়ার চেষ্টা করেছিলেন ইগনাসেভিক। কিন্তু কঠিন অ্যাঙ্গেল থেকে তার শট আর কাজে লাগেনি।

৩৯ মিনিটে ডেনিশ চেরিশেভ আরও একবার সুযোগ পেয়েছিলেন। আর্তেম জিউবার কাছ থেকে বল পেয়ে বাম পায়ের দারুণ এক শট নিয়েছিলেন চেরিশেভ। কিন্তু সেটা কোনো কাজে লাগেনি। মুহূর্ত পরেই গোল দিয়ে বসেন ক্রামারিচ।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই খেলার পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয় ক্রোয়েশিয়া। ৫২ মিনিটেই গোলের চেষ্টা করেন আন্দ্রে ক্রামারিচ। কিন্তু তার শট ঠেকিয়ে দেন রাশিয়ার গোলরক্ষক। ৫৮ মিনিটে আনতে রেবিক চেষ্টা করেন গোলের। কিন্তু তার শট চলে যায় বারের ওপর দিয়ে।

৫৯ মিনিটে এগিয়ে যাওয়ার দারুণ সুযোগ পেয়েছিল ক্রোয়েশিয়া কিন্তু রাশিয়ার সাইডবার আর তাদের এগিয়ে যেতে দিলো না। কর্নার কিক থেকে ভেসে আসা বলে বক্সের মধ্যে বার কয়েক গোত্তা খেয়েছিল। শেষ মুহূর্তে পেয়েছিলেন পেরিসিচ। মাটি কামড়ানো শট নিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু বল সাইডবারে লেগে গোললাইন বরাবর অনপাশ দিয়ে বের হয়ে যায়।

৬২ মিনিটে রাশিয়ার আর্তেম জিউবা দারুণ এক হেড নিয়েছিলেন; কিন্তু গোলরক্ষক এবারও সেটা ঠেকিয়ে দেন। ৭২ মিনিটে এগিয়ে যেতে পারতো রাশিয়া। আলেকজান্ডার এরোখিনের হেড চলে যায় একেবারে পোস্ট ঘেঁষে। ৭৬ মিনিটে লুকা মডরিচের শট ঠেকিয়ে দেয় রাশিয়ার ডিফেন্স। ৭৭ মিনিটে ক্রোয়েশিয়ার মারিও মানজুকিচ দারুণ এক হেড করেছিলেন। কিন্তু এবারও বল চলে যায় ওপর দিয়ে।

—- আর


-->


সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক: আবু সুফিয়ান
চেয়ারম্যান: মুসলিমা সুফিয়ান

কল: 01723-980255,01919-972103
নিউজ রুম :01710-972103
ইমেল: [email protected]

১২মধ্য বেগুনবাড়ি,তেজগাঁও শিল্প এলাকা,ঢাকা -১২০৮
ইমেল: [email protected]